গোলাপগঞ্জে সন্ত্রাসী হামলা ও লুটপাট মামলার আসামী ধরা ছোয়ার বাহিরে, ব্যবসায়ীদের মধ্যে আতংক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার, ০১ জুন ২০২১ ০৫:০৬

গোলাপগঞ্জে সন্ত্রাসী হামলা ও লুটপাট মামলার আসামী ধরা ছোয়ার বাহিরে, ব্যবসায়ীদের মধ্যে আতংক

গোলাপগঞ্জ(সিলেট) প্রতিনিধি:-  গোলাপগঞ্জের ঢাকাদক্ষিণ পূর্ব বাজারের এক ব্যবসায়ীর উপর সন্ত্রাসী হামলা, ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে ভাঙ্গচুর ও লুটপাট মামলার আসামী খলু মিয়া(৫৮)সহ অপর পাঁচ জন এখনো অধরা। মামলার ছয় দিনেও ধরা পড়েনি সন্ত্রাসী হামলা, ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে ভাঙ্গচুর ও লুটপাট মামলার অভিযুক্ত উপজেলার দত্তরাইল মিশ্রপাড়া গ্রামের মৃত রমিজ আলীর পুত্র খলু মিয়া উরফে খলু বাহিনীর সদস্যরা।

ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্ত খলু মিয়া ও তার বাহিনী প্রকাশ্যে ঢাকাদক্ষিণ বাজার ও মিশ্রপাড়া গ্রামে অবাধে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আসামীকে আটকের চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ।

মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ১৫ মার্চ অসামাজিক কার্যকলাপের জের ধরে গত মঙ্গলবার (২৬ মে) বিকেল ৪টার দিকে রায়গড় গ্রামের জুবায়েল আহমদ নামক এক যুবকের সাথে কয়েকজন যুবকের ঝগড়া হয়।

এসময় বিষয়টি ব্যবসায়ী রেজান আহমদ মুন্না দেখতে পেয়ে তাদের ঝগড়া থামিয়ে দেন এবং সবাইকে বাড়িতে চলে যেতে বলেন। এ জের ধরে অভিযুক্তরা দেশীয় অস্ত্রসজ্জিত হয়ে রেজান আহমদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ইত্যাদি টেলিকমে এসে তার উপর হামলা ও দোকানের ভাঙচুর ও লোটপাট চালানো হয় বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

ভুক্তভোগী রেজান আহমদ মুন্না জানান, সন্ত্রাসীরা আমার দোকানে এসে প্রানে মারার জন্য হামলা করে। এসময় আমার দোকানে থাকা ১টি কম্পিউটার ও কাস্টমারের ২৪ টি মোবাইল, বিদ্যুৎ বিলের ১৬ হাজার টাকা নিয়ে যায়। এছাড়াও আমার দোকানের বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাঙচুর করে সর্বমোট ১লক্ষ ৫৬ হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করেছে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী রেজান আহমদ বাদী হয়ে ৬জনকে অভিযুক্ত করে গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় (মামলা-২৫) একটি মামলা দায়ের করেছেন।

এ নিয়ে রেজান আহমদের গ্রামবাসী ও ব্যবসায়ীরা অনতিবিলম্বে আসামীদের গ্রেফতার করার দাবী জানিয়েছেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই লুৎফুর রহমান বলেন, আসামীরা পলাতক রয়েছে। তাদেরকে আটকের জোর চেষ্টা চলছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ