কোম্পানীগঞ্জে পাথর চুরির বিরুদ্ধে হার্ডলাইনে পুলিশ

প্রকাশিত:বুধবার, ১২ মে ২০২১ ০২:০৫

কোম্পানীগঞ্জে পাথর চুরির বিরুদ্ধে হার্ডলাইনে পুলিশ

কোম্পানীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ভোলাগঞ্জ, ধলাই নদী, কালাইরাগ, উৎমা, মাঝের গাঁও ও শাহ আরফিন টিলা থেকে পাথর চুরির বিরুদ্ধে হার্ডলাইনে রয়েছে কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশ। বন্ধ থাকা এসব কোয়ারি থেকে লুকিয়ে পাথর উত্তোলনের দায়ে ইতিমধ্যে একাধিক লোককে ধরে জেলে প্রেরণ করা হয়েছে এবং তার সাথে জড়িত অনেকের নামে মামলাও করেছে পুলিশ।

গত ১০ মে সকাল ৬ টায় উপজেলার কালাইরাগ কোয়ারি থেকে পাথর উত্তোলন ও পরিবহনের দায়ে একটি ট্রাক্টরসহ বদরুল আলম ও সুন্দর আলী নামের ২ জনকে গ্রেফতার করে কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশ। এ সময় তাদের সাথে থাকা পাড়ুয়া মাঝপাড়া গ্রামের মৃত ওসমান আলীর ছেলে মীর হোসেন, ভাটরাই গ্রামের সুরুজ আলী, কলাবাড়ি গ্রামের রফিক মিয়া ও মনির মিয়াসহ আরো কয়েকজন পালিয়ে যায় বলে এজাহার সুত্রে জানা গেছে। এর আগে শাহ আরিফ ও কালাইরাগ কোয়ারি থেকে পাথর উত্তোলন ও পরিবহনে দায়ি ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা করেছে কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশ।

বন্ধ থাকা এসব পাথর কোয়ারি থেকে পাথর উত্তোলন ও পরিবহন টেকাতে ২৪ ঘন্টা এসব পাথর কোয়ারির প্রবেশ মুখে টহল দিচ্ছে পুলিশ।

উল্লেখ্য, মীর হোসেন পাথর লুটপাট ছাড়াও ভোলাগঞ্জ রোপওয়ে (বাংকার), ধলাই নদী, ও শাহ আরিফ এলাকার অবৈধ পাথর পরিবহন কারিদের কাছ থেকে নিজে উপস্থিত থেকে চাঁদা উত্তোলন করে থাকে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ কেএম নজরুল জানান, উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে পুলিশ পাথর লুটপাট কারীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে রয়েছে। ইতি পুর্বে কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশের ফেসবুক আইডি থেকেও পাথর উত্তোলন ও পরিবহন নিষিদ্ধ জানিয়ে দিয়ে কঠোর সতর্ক বার্তা দেয়া হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, “অবৈধ পাথর উত্তোলনের সাথে জড়িত কাউকে ছাড় দেয়া হবে না”। কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশ ২৪ ঘন্টা এসব জায়গায় টহলে রয়েছে। পাথর লুটপাটের সাথে জড়িত যেই হোক তাকে আইনের আওতায় আনা হবে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ