প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা কোভিটমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তুলবো ইনশাহ আল্লাহ : পররাষ্ট্র মন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার, ০২ মে ২০২১ ১০:০৫

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা কোভিটমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তুলবো ইনশাহ আল্লাহ : পররাষ্ট্র মন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার:-  পররাষ্ট্র মন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার করোনা কালীন সময়ে মানুষের জীবন ও জীবিকার প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। আমরা সকলে মিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে কোভিটমুক্ত,অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তুলবো ইনশাহ আল্লাহ।

তিনি গতকাল রোববার দুপুর সাড়ে ১২টায় সিলেটের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সেচ্ছাতহবিল থেকে ঈদ উপহার হিসেবে ১০লাখ টাকা থেকে ৬৫ জনকে ১০ হাজার টাকা করে সাড়ে ৬লাখ টাকার চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে ভার্চুয়াল আলোচনায় যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।

সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত চেক বিতরণী অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্র মন্ত্রী আরো বলেন, যারা অনুদান পাননি তারা আমার ব্যক্তিগত মোমেন ফাউন্ডেশনে যোগাযোগ করবেন। তাদের সহযোগিতা করা হবে। এছাড়া আমাদের স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা করছেন।

তিনি আরো বলেন, আওয়ামীলীগ ও সহযোগি সংগঠনের সকলে মিলে আমরা কর্মহীন গরীব অসহায় মানুষদের সাহায্য সহযোগিতার হাত প্রসারিত করবো। সেই সাথে মহামারি করোনার এই দুর্যোগ মোকাবিলায় সচেতন হয়ে আমরা সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবো। এ জন্য আপনারা সকলে প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ আমাদের জন্য দোয়া করবেন বাংলাদেশ ও বিশ্ব যেন করোনা মুক্ত হয়।

তিনি বলেন,আমার নির্বাচনী এলাকার জন্য ১ কোটি ২৭ লাখ টাকার টিআর কাবিকা টাকা বরাদ্দ পেয়েছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চান সরকারের এই উন্নয়ন বরাদ্দের টাকা যেন সদ্ব্যবহার হয়। কাজ যেন সঠিক ভাবে হয় এদিকে খেয়াল রাখতে হবে।২০০৯ সাল থেকে শুরু হওয়া ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফল আজ মানুষের দ্বারে দ্বারে পৌছে গেছে।

তিনি বলেন,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১০কোটি টাকা ৩৬ লক্ষ পরিবারের মধ্যে ২৫০০ টাকা করে নগদ,বিকাশ শিয়র কেশ ও রকেট এর মাধ্যমে সরাসরি মোবাইলে এসএমএস এর মাধ্যমে পাঠানোর কার্যক্রম চালু করেছেন। এছাড়া ৫ কোটি টাকা ক্ষতিগ্রস্থ ১লক্ষ কৃষককে ৫০০০ টাকা করে দেয়ার ব্যবস্থা করেছেন। এছাড়া ওএমএস এবং টিসিবির মাধ্যমে স্বল্প আয়ের মানুষের কম মূল্যে পণ্য ক্রয়ের ব্যবস্থা করেছেন। সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির সুবিধাভোগীর টাকাও মোবাইলে এবং শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির টাকাও একই ভাবে অভিভাবকের মোবাইলে চলে যাচ্ছে।

১৯৯৬ সালে আওয়ামীলীগ সরকার গঠনের পর ১৯৯৭ সারে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় মুক্তিযোদ্ধা ভাতা,বয়স্ক ভাতা,বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা,মাতৃত্ব ভাতাসহ বিভিন্ন প্রকল্প চালু করা হয়। বাংলাদেশে ডমেস্টিক মার্কেট চাঙ্গা করতে এবং দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখতে কাজ করছে সরকার।

চেক বিতরণী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন-সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ, সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী, সিলেট মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সিনিয়র সহ সভাপতি আব্দুল জব্বার জলিল।

উপস্থিত ছিলেন-সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আসলাম উদ্দিন, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মকতা শফিউল আলম চৌধুরী জুয়েল, মোমেন ফাউন্ডেশনের অফিস কর্মকর্তা রুবেল আহমদ।