বিশ্বনাথে স্বামীর চুরির মামলায় কথিত প্রেমিকসহ স্ত্রী গ্রেফতার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার, ২৯ এপ্রি ২০২১ ১১:০৪

বিশ্বনাথে স্বামীর চুরির মামলায় কথিত প্রেমিকসহ স্ত্রী গ্রেফতার

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি:-  সিলেটের বিশ্বনাথে স্বামী হাবিবুর রহমানের দায়ের করা চুরির মামলায় কথিত প্রেমিকসহ স্ত্রী রিয়া বেগম (২৪)’কে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ।

উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের পুরানগাঁও (কোনাপাড়া) গ্রামের আব্দুুল বারিকের পুত্র হাবিবুর রহমানের দায়ের করা লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে বুধবার সকালে জকিগঞ্জ উপজেলা থেকে তাদেরকে প্রথমে আটক করে পুলিশ, এরপর বৃহস্পতিবার অভিযোগপত্রটি মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করে মামলায় হাবিবুর স্ত্রী এক সন্তানের জননী রিয়া বেগম ও তার কথিত প্রেমিক জকিগঞ্জ উপজেলার হাতিডহর গ্রামের ফারুক আহমদের পুত্র এনায়েত হোসেন ফাহাদকে গ্রেফতার দেখায় পুলিশ।

মামলা নং ৩০ (তাং ২৯.০৪.২১ইং)। মামলার এহাজারে এক সন্তানের জনক হাবিবুর রহমান উল্লেখ করেন, প্রায় এক বছর ধরে তিনি তার স্ত্রী রিয়া বেগমের মধ্যে কিছুটা অস্বাভাবিক আচার-আচরণ লক্ষ্য করে আসছিলেন। তিনি ধারণা করতেন তার অবর্তমানে রিয়া অন্য কোনো পুরুষের সাথে কথা বলত।

গত মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৮টায় তারাবিহ নামাজ পড়তে মামাতো ভাই ইসমাইল হোসেনের সাথে পার্শ্ববর্তী মসজিদে যান হাবিব। এসময় তাদের একমাত্র শিশু কন্যাটি দাদুর সাথে অন্য বাড়িতে থাকায় ঘরে একাই ছিলেন রিয়া। হাবিব নামাজে থাকাবস্থায় তার বাড়ির সামনের খালের এক পাশে একটি সাদা রঙ্গের প্রাইভেট কারকে এক থেকে দুই মিনিট দাড়িয়ে থাকতে দেখেন ইসলাম উদ্দিন নামের একই গ্রামের এক ব্যক্তি। যেটি পরে দ্রুত স্থান ত্যাগ করে চলে যায়। হাবিব নামাজ শেষে বাড়ি ফিরে দেখতে পান, কোথাও নেই তার স্ত্রী রিয়া। রিয়ার ব্যবহৃত ফোনটিও বন্ধ পান তিনি। এ সময় তিনি খোঁজ নিতে গিয়ে দেখেন, তার ঘরে আলমিরাতে রাখা নগদ ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা, ৭ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, একটি এন্ড্রুয়েড ফোনসেট, মূল্যবান জিনিসপত্র ও কাপড়চোপড় কিছুই নেই। হাবিবের ধারণা, তার স্ত্রী অপর আসামীদের সহযোগিতায় ওই টাকা ও মালামাল চুরি করে নিয়ে গেছে।
এদিকে একটি সূত্র জানিয়েছে, এক সন্তানের জননী রিয়া বেগমের সাথে দীর্ঘদিন ধরে মন দেয়া নেয়া চলছিল এনায়েত হোসেন ফাহাদের। প্রেমের টানেই গত মঙ্গলবার রাতে কথিত প্রেমিক ফাহাদের হাত ধরে স্বামী ঘর ছাড়েন রিয়া।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) এমরুল বলেন, ‘গ্রেফতারের পর ফাহাদের কাছ থেকে ৫হাজার টাকা ও একটি এন্ড্রয়েড ফোটসেট উদ্ধার করা হয়েছে।

মামলা দায়ের ও দুজনকে গ্রেফতারের সত্যতা নিশ্চিত করে বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) শামীম মুসা বলেন, ‘চুরির মামলায় গ্রেফতারকৃত দু’জনকে আজ (বৃহস্পতিবার) দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।’