সিলেট সিটি কাউন্সিলর সেলিমের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির আরো দুটি অভিযোগ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার, ০৮ এপ্রি ২০২১ ০৭:০৪

সিলেট সিটি কাউন্সিলর সেলিমের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির আরো দুটি অভিযোগ

সুরমাভিউ:-  সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ২২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অ্যাডভোকেট সালেহ আহমদ সেলিমের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও দখলবাজির পৃথক আরো ২ টি অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার (৮এপ্রিল) সিলেটে মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি) কমিশনার বরাবরে অভিযোগ দুটি দায়ের করেন নগরীর বন্দর বাজারের মেসার্স হৃদয় এন্ড ব্রাদার্স-এর স্বত্বাধিকারী হবিগঞ্জের হাজী মোঃ শাহাব উদ্দিন ও  সিলেট নগরীর শাহজালাল উপশহর এইচ ব্লবের বাসিন্দা মোঃ রমজান।

হাজী শাহাব উদ্দিনের অভিযোগ শাহজালাল উপশহরে তার খরিদা বাড়ি রকম ভূমির চতুর্দিকে  তিনি বাউন্ডারী দেয়াল নির্মান শুরু করলে সিলেট সিটির ২২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অ্যাডভোকেট সালেহ আহমদ সেলিম তার কাজে বাঁধা দেন এবং তার কাছে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা না দেওয়ায় সালেহ আহমদ সেলিম তার দলবল নিয়ে মঙ্গলবার (৭এপ্রিল) বিকেলে হাজী শাহাব উদ্দিনের বাড়িতে অনধিকার প্রবেশ করে ৩৫ হাজার টাকা মূল্যের নির্মান সামগ্রী লুটে নেন।

অপরদিকে এসএমপি পুলিশ কমিশনার বরাবরেও মোঃ রমজানের অভিযোগ- নগরীর উপশহরে তার মালিকাধীন একটি ডোবায় মাটি ভরাটের কাজ শুরু করলে কাউন্সিলর অ্যাডভোকেট সালেহ আহমদ সেলিম তার কাছে  ৪ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় কাউন্সিলর সালেহ আহমদ সেলিম মঙ্গলবার (৭এপ্রিল) দুপুরে দলবল নিয়ে  তার মাটি ভরাটের কাজ বন্দ করে ওই ডোবা জবর দখলের চেষ্টা করছেন।

এসএমপি’র সংশ্লিষ্ট শাখা হাজী শাহাব উদ্দিন ও মোঃ রমজানের পৃথক অভিডেযাগ প্রাপ্তির সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

এর আগে গত মার্চ মাসে কাউন্সিলর সালেহ আহমদ সেলিমের বিরুদ্ধে উপশহরে নারী উদ্যোক্তার মেলা আয়োজনে  চাঁদাবাজির ঘটনায় একটি মামলা হয়। ফলে তাকে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি প্রদান করা হয়। কাউন্সিলর সালেহ আহমদ সেলিমের বিরুদ্ধে ফিজা এন্ড কোং-এর স্বত্ত্বাধিকারী নজরুল ইসলাম বাবুলের  দায়ের করা আইসিটি অ্যাক্টের আরেকটি  মামলা তদন্তাধীন রয়েছে বলে এসএমপি’র কোতোয়ালি পুলিশ সুত্রে জানা গেছে। বিজ্ঞপ্তি

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ