কুলাউড়া কর্মধায় অপরিকল্পিত ফানাই নদী খননে ৩ টি ব্রীজ ঝুকিপূর্ণ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার, ৩০ মার্চ ২০২১ ১০:০৩

কুলাউড়া কর্মধায় অপরিকল্পিত ফানাই নদী খননে ৩ টি ব্রীজ ঝুকিপূর্ণ

সেলিম আহমেদ,সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট: মৌলভীবাজার জেলা কুলাউড়া উপজেলার কর্মধা ইউনিয়নে অপরিকল্পিত ভাবে নদী খনন করায় ৬০ ফুট ৩ টি বড় ব্রীজ ঝুকিপূর্ণ ভাবে আছে । ভেঙ্গে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

কর্মধা ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের অন্তর্ভুক্ত এই ৩ টি ব্রীজ। মধ্য হাসিমপুর পূর্বহাসিমপুর (কোনাগাও) লক্ষিপুর রাংগিছড়া বাজার ও কুলাউড়া সহ সংযোগ এট বড় ব্রীজ। স্থানীয় সূত্রে জানাযায় এই ব্রীজ খুব বেশি ঝুকিপূর্ণ ,ব্রীজের মধ্যকার পিলারের নিচের মাটি সরেগিয়ে পিলার নিচের দিকে প্রায় ৩ ফুট চলে যায় এর ফলে ব্রীজের মধ্যখান বাকা হয়ে বড় একটা ফাটল দেখা যায়। হঠাৎই ভেঙ্গে
পড়বে বলে অত্র কয়েকটি এলাকার মানুষ ভয়ে পারাপার করতে পারছেন না

আরেকটি ব্রীজ পুরশাই খান্দি গাও বেরী হাসিমপুর বাবনিয়া কর্মধা ও রবির বাজার হইতে গুতুম পুর এবং রাংগিছড়া বাকারে সংযোগ হয়েছে এই ব্রীজও ৬০ ফুট। একই অবস্থা এই ব্রীজেরও ।

এদিকে পূর্ব বাবনিয়া থেকে নজুর বাড়ি কবরস্থান, টিল্লা বাড়ি, নুনা, হুসনাবাদ হয়ে ১৩ নং কর্মধা ইউনিয়ন পরিষদের রাস্তায় সংযোগ হয়েছে। একি অবস্থা এই ব্রীজেরও।

কর্মধা ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের স্থানীয় মেম্বার মুহিব আহমেদ জানান ফানাই নদী খনন করায় ব্রীজের পিলারের নিচের মাটি সরেগিয়ে এমন অবস্থা হয়েছে। কুলাউড়া মডেল হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালিক তিনি বলেন ফানাই নদী সম্পুর্ণভাবে অপরিকল্পিতভাবে খানম করায় ব্রীজগুলার এ অনস্থা হয়েছে কবে ভেঙ্গে পড়বে এই ভয়ে মানুষ ব্রীজের ওপর দিয়ে পার হচ্ছেনা। আর এই ব্রীজ ভেঙ্গে পড়লে বিকল্প কোনো রাস্তা নাই।

প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালিক আরো বলেন এই দায় কে নেবে । এলাকাবাসীর দাবিতে কর্মধা ইউনিয়নের আওতাধীন ফানাই নদী খননের আগে প্রায় ২/৩ টি আবেদন দেওয়া হয়েছে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বরাবর ও জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীর বরাবর কর্মধায় ফানাই নদী খনন না করার জন্য। কিন্তু কে শুনে কার কথা।

কর্মধা ইউনিয়নে ফানাই নদীর ওপর বেশ কয়েকটি বড় বড় ব্রীজ রয়েছে নদীর তীরে ঘনবসতি মালিকানা বাড়িঘর ,মসজিদ করবস্থান পাকা রাস্তা রয়েছে এবং সবচেয়ে বেশি গ্রামের সুন্দর্য বাস বাগান বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রয়েছে। এই অঞ্চলে নদী খনন করলে এসব কিছুই থাকবেনা এলাকাবাসী এর দাবিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলীর বরাবর আবেদন করেছিলেন এলাকাবাসী।

এলাকাবাসীর সূত্র জানাযায় মৌলভীবাজার জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলী এলাকাবাসীর দাবি না শুনে এটা পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রজেক্ট এই অজুহাত দেখিয়ে সম্পুর্ণভাবে অপরিকল্পিতভাবে ফানাই নদী খনন করায় ফানাই নদীর ওপর যে কয়টা ব্রীজ রয়েছে সবটা ঝুকিপূর্ণ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ