ছাতকে জলমহালে মাছ লুটপাঠ ও সংঘর্ষের ঘটনায় থানায় মামলা

প্রকাশিত:সোমবার, ২২ মার্চ ২০২১ ০৯:০৩

ছাতকে জলমহালে মাছ লুটপাঠ ও সংঘর্ষের ঘটনায় থানায় মামলা

সুরমাভিউ:-  ছাতকে জলমহালে মাছ লুটপাঠ ও সংঘর্ষের ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শাহজালাল মৎসজীবি সমবায় সমিতি লিঃ এর সাধারণ সম্পাদক মোঃ মাসুক উদ্দিন বাদী হয়ে এই মামলা দায়ের করেন। লিজ কৃত বসন্তপুর নি¤œ উপর গর্জনী জলমহাল উত্তর খন্ডে মাছ লুটপাঠ, চুরি ও সংঘর্ষের ঘটনায় গত ১৯ মার্চ ২৮ জনের নাম উল্লেখ করে ছাতক থানায় এই মামলা দায়ের করা হয়। যাহার নং- ২১/১৭।

মামলার আসামীরা হলেন ১। সুজন মিয়া (৩৫), পিতা: কাচা মিয়া, ২। মনির মিয়া (৫৫), পিতা: মৃত আছমত উল্লাহ ৩। মফিজ আলী (৫৫) পিতা: মৃত মারফত আলী, ৪। আব্বাস আলী (৪০), পিতা: মৃত শমসের আলী, ৫। রহিম উদ্দিন (৩০), পিতা: ছামির আলী, ৬। ছামির উদ্দিন (৪২), পিতা: মৃত কমরু মিয়া, ৭। সাহাব উদ্দিন (৩৫), পিতা: মইজ উদ্দিন সাধু, ৮। শমছুল ইসলাম (৩৮), পিতা: নুর ইসলাম, ৯। মনির মিয়া (৩২), পিতাঃ আব্দুর বশির, ১০। রফিক উদ্দিন (৫৫), পিতা: মৃত তৈয়ব উল্লাহ, ১১। দুদু মিয়া (৪৫) পিতা: মৃত: আজিদ উল্লাহ, ১২। মিন্টু মিয়া (৩২) পিতা: নিজাম উদ্দিন টখন, ১৩। ইরন মিয়া (৩৫) পিতা: ছমক আলী, ১৪। তাজ উদ্দিন (৪৫), পিতা মৃত জুনাব আলী, ১৫। আলী আসকর মোল্লা (৪২), পিতা: মৃত: আব্দুল মনাফ, ১৬। ছুরত মিয়া (৫৫), পিতা মৃত গিয়াস উদ্দিন, সাং জাহিদপুর, , ১৭। ফখর উদ্দিন (৫৭), পিতা: মৃত তৈয়ব উল্লা, ১৮। মানিক মিয়া (৪২), পিতাঃ মৃত আব্দুল জলিল সর্ব সাং-জাহিদপুর, ১৯। আঙ্গুর মিয়া (৪০) পিতা : মৃত নূর মিয়া সাং- পূর্ব বসন্তপুর, ২০। তাজ উল্লাহ (৫৫), পিতা: মৃত আব্দুল গফুর, ২১। হোসাইন আহমদ তোরন (৩২) পিতা: কাচা মিয়া, ২২। আকিকুর রহমান (৪২), পিতা: মৃত মোর্সেদ আলী সর্ব সাং-জাহিদপুর, ২৩। আব্দুল হামিদ (৪৫), পিতা: ছইদ উল্লাহ সাং-চাঁনপুর, ২৪। আস্কন আলী (৪০), ২৫। আছলম আলী (৩৫), উভয় পিতা: মৃত আজর আলী, ২৬। আশিক আলী (৩৫) পিতাঃ শরিয়ত উল্লা, ২৭। ফয়ছল (৩০) পিতা: আছির উদ্দিন সর্ব সাং-বসন্তপুর, ২৮। গৌছ উদ্দিন (৪২) পিতা মৃত ঠাকুর ধন আলী, সাং- শেরা মাহমদপুর, পাঠলী, জগন্নাথপুর। সহ অজ্ঞাতনামা আরো ১৫০/১৬০ জন।

বিল লুটপাঠ মামলা দায়ের করাকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষের মধ্যে টানটান উত্তেজনা ও এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ খরচে। এই নিয়ে যে কোন সময় বড় ধরনের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে। স্থানীয় জাহিদপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র থাকা স্বত্ত্বে আসামীরা দিব্যি এলাকায় ঘুরে ফেরা ও মামলা বাদীকে বিভিন্ন হুমকি ধামকি প্রদান করে আসছে।

আসামীদের ধরতে প্রশাসনের নিরবতা বিভিন্ন প্রশ্নের জন্মে দিচ্ছে। মামলা বাদী অনতিবিলম্বে আসামীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তি প্রদানের জন্য দাবি জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে জাহিদপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই পলাশ চন্দ্র দাশ সুরমাভিউকে জানান মামলার আসামিরা জামিনে রয়েছে। মামলার কাজ তদন্তাধীন রয়েছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ