পুলিশী হামলার প্রতিবাদ জানিয়ে সিলেটে উই আর ন্যাশনালিস্টের মশাল মিছিল

প্রকাশিত:সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১ ১০:০৩

পুলিশী হামলার প্রতিবাদ জানিয়ে সিলেটে উই আর ন্যাশনালিস্টের মশাল মিছিল

সুরমাভিউ:- বিতর্কিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার লেখক মুশতাক আহমেদকে কারাগারে হত্যার প্রতিবাদে গতকাল কেন্দ্রীয় ছাত্রদল আহুত বিক্ষোভ কর্মসূচিতে পুলিশী হামলার প্রতিবাদ জানিয়ে সিলেটে উই আর ন্যাশনালিস্টের মশাল মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

আজ ১ মার্চ  সোমবার রাতে সিলেট নগরীর দরগাহ গেইট থেকে মিছিল শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে চৌহ্রাটা পয়েন্টে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়।

সংগঠনের সভাপতি, সিলেট মহানগর ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা আবু সালেহ মোঃ তাহের এর সভাপতিত্বে ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা আজিজ খান সজিব, মহানগর ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক সদরুল ইসলাম লুকমানের যৌথ পরিচালনায় এসময় বক্তব্য রাখেন সিলেট মহানগর ছাত্রদলের সহ সভাপতি আবদুল হাসিব, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা রাসেল আহমদ খান, ফারুক আহমদ, বাইন উদ্দিন আনোয়ার, হাবিবুর রহমান হাবিব, ছাব্বির কামালী।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক রিপন আহমদ, মহানগর ছাত্রদলের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেরাজ ভুইঁয়া পলাশ, সহ সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন হোসাইন জয়, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আশিকুর রহমান তারেক, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ রাজু মিয়া, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক পাবেল আহমদ জামিল, আশরাফুল তালুকদার, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক জাহিদুল হোসাইন, ফারুক আহমদ (জুনিয়র), জুনেদ আহমদ, জহুর আহমদ, মেজ আহমদ, শেখ শরীফ, রিপন আহমদ, মহানগর তরুন দলের যুগ্ম আহবায়ক এনাম আহমদ রাজ, ৪নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক শাহরিয়ার শান্ত, মাছুম আহমেদ, মোঃ ফয়সল, সেলিম আহমদ, মাহমুদ, আবদুল মুমিন, হান্নান আহমদ, মুস্তাকিম, জাহেদ প্রমুখ।

এসময় বক্তারা বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নামক কালো আইন দ্বারা আজ দেশের জনগণের বাকস্বাধীনতা হরণ করা হয়েছে, সরকারের সমালোচনা করে সামান্য দু-এক কলম লেখার কারণে যাকে তাকে যখন তখন ধরে নিয়ে গিয়ে মামলা দিয়ে জেলে ভরা হচ্ছে, তারই ধারাবাহিকতায় লেখক মুশতাককে অন্যায়ভাবে কারাগারে বন্দী করে রাখা হয়,শুধু তাই ই নয় নির্মম নির্যাতনে তাকে হত্যা করেছে এই জালিম সরকার… এরচেয়েও দুঃখের বিষয় আমরা এর প্রতিবাদে রাস্তায় নামলে আমাদেরকে বর্বরভাবে পুলিশী হামলার শিকার হতে হয়। জনগণের ট্যাক্সের টাকায় বেতন দেয়া হয় যেই পুলিশকে জনগণের জানমালের নিরাপত্তা প্রদানের জন্য, সেই পুলিশ আজ স্বৈরাচারের লাঠিয়াল বাহিনীর ভুমিকায় অবতীর্ণ হয়েসে, একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ কর্মসূচি এদেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার, সেই অধিকার নিয়ে রাজপথে নামলেই পুলিশ নির্বিচারে পিটুনী-গুলি বর্ষণ করে, এ যেন এক পুলিশী রাষ্ট্র, ১৯৭১ সালে লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতা তো এজন্য অর্জন করা হয় নাই, স্বাধীনতার ৫০ বছর পর এসে আজও আমরা কথা বলার স্বাধীনতা পাইনি, এটা খুবই দুঃখজনক।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ