জগন্নাথপুর মইয়া হাওরে ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে বালু দিয়ে বেড়িবাঁধ

প্রকাশিত:শনিবার, ১৩ ফেব্রু ২০২১ ০৬:০২

জগন্নাথপুর মইয়া হাওরে ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে বালু দিয়ে বেড়িবাঁধ

মোঃ আলী হোসেন খান::সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে হাওর রক্ষা বেড়িবাঁধে অনিয়ম আর দুর্নীতির শেষ নাই, পাহাড়ি ঢলের পানি হাওরবাসীদের জন্য সবসময় অভিশাপ,হাওরবাসীদের ও ফসল রক্ষা করার জন্য প্রতি বছর করা হয় বেড়িবাঁধ সেই বেড়িবাঁধে অনিয়ম আর দুর্নীতি হলে হাওর বাসী কখনো সয্য করবেনা।

 

কিন্তু উদ্বেগজনক খবর হচ্ছে এই ১৯ ও ২০ নং বাঁধের কাজ হচ্ছে বালু মাটি দিয়ে, পাহাড়ি ঢল আসলে কখনো এই বাঁধ টিকবে না।

জগন্নাথপুর নলুয়া হাওর পোল্ডার- ০১ প্রকল্পের মইয়া হাওরে ১৯ নং পিআইসি ৩০.০৩৫,হতে ৩২.০৫৬ মধ্যবর্তী বাঁধের জন্য এ বছর দেওয়া হয়েছে ১৪ লাখ ৩৭ হাজার টাকা
১৯ নং পিআইসির সভাপতি সাজিদুর রহমান খলিল।

স্হানীয়দের অভিযোগ অতি দ্রুত এই বালুর বাঁধ ভেঙ্গে নতুন করে বাঁধ নির্মাণের দাবি। সরজমিনে দেখা গেছে মইয়া হাওরের স্টিল ব্রীজের পাশে রয়েছে বড় একটি নদী তার পাশে রয়েছে মইয়া হাওর সেই হাওরকে রক্ষা করতে দেওয়া হয়েছে বেড়িবাঁধ দেখা যায় ১৯,২০ নং পিআইসির কাজ চলের বালু মাটি দিয়ে যা কখনো টিকবে না বাঁধ।

 

এসময় প্রকল্পের সভাপতিদের সাথে কথা বললে তারা জানান আমরা উপজেলার পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তাদের পরামর্শে কাজ করি তারা বলছেন নিছে বালু মাটি দিয়ে কাজ করতাম, স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন যে ভাবে বালু মাটি দিয়ে হাওর রক্ষা বাঁধ হচ্ছে এই বাঁধ নির্মাণ হলে বৃষ্টিতেই ভেঙে যাবে। কর্তৃপক্ষ যেন দায়সারাভাবে কাজ করাচ্ছে।

এ বেপারে উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড (এসও) হাসান গাজী বলেন পিআইসির সভাপতিদের বলা হয়েছে বালু মাটি সরানোর জন্য,সাংবাদিকের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন এই ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধে কখনো মাটি দিয়ে কাজ হবেনা।