সিলেটে করোনায় ২০ দিনে ১৭ মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার, ২২ ডিসে ২০২০ ১২:১২

সিলেটে করোনায় ২০ দিনে ১৭ মৃত্যু

ওয়েছ খছরু, সিলেট।।

সিলেটে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। সেই সঙ্গে বাড়ছে রোগীর সংখ্যা। তবে স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, শীত মৌসুমের আগে নতুন করে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। এ কারণে চিকিৎসা পাচ্ছে করোনা আক্রান্তরা। করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সিলেটে এরই মধ্যে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। বিশেষ করে আকাশ পথে যারা আসছেন তারা করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট নিয়ে আসছেন। স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য থেকে জানা গেছে- সিলেটে করোনা আক্রান্ত হয়ে গত ২০ দিনে মারা গেছে ১৭ জন। সিলেটের বিভিন্ন হাসপাতালে এসব রোগীরা মারা যান।

এর আগে গত নভেম্বর মাসে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১১ জন। আগষ্ট থেকে অক্টোবর পর্যন্ত সিলেটে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া রোগীর সংখ্যা ছিল কম। শনাক্ত ও ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা ছিল নিম্নগামী। এখন শীত বেড়ে যাওয়ার কারণে রোগী ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে।

 

স্বাস্থ্য বিভাগ সিলেটের তথ্য মতে- গত অক্টোবর মাসের শেষদিন পর্যন্ত সিলেট বিভাগে করোনায় মারা যান ২৩৩ জন। আর পুরো নভেম্বর মাসে প্রাণহানি ঘটে ১১ জনের। তবে চলতি মাসে শীতের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় বেড়েছে মৃত্যুর হারও। চলতি মাসের ২০ দিনে করোনাভাইরাসে প্রাণ হারিয়েছেন ১৭ জন।

 

এ পর্যন্ত সিলেট বিভাগে মোট মৃত্যু হয়েছে মোট ২৬১ জনের। মৃতদের মধ্যে রয়েছে- সিলেট জেলায় ১৯৭, সুনামগঞ্জে ২৬, হবিগঞ্জে ১৬ ও মৌলভীবাজারে ২২ জন। এদিকে, সিলেট বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছেন আরো ৫৬ জন।  এর মধ্যে সিলেট জেলায় ৫০, হবিগঞ্জে ২ ও মৌলভীবাজারে ৪ জন। গতকাল সকাল ৮টা পর্যন্ত সিলেট বিভাগে মোট করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন ১৫ হাজার ২৭৫ জন। এর মধ্যে সিলেট জেলায় ৮ হাজার ৯৬৩, সুনামগঞ্জে ২ হাজার ৫০৪, হবিগঞ্জে ১ হাজার ৯৪২ ও মৌলভীবাজার জেলায় ১ হাজার ৮৬৬ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫০ জন। এর মধ্যে সিলেট জেলায় ৪৪, সুনামগঞ্জে ৫ ও হবিগঞ্জে ১ জন। এই ৫০ জনকে নিয়ে সিলেট বিভাগে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন মোট ১৪ হাজার ১৭০ জন। এর মধ্যে সিলেটে ৮ হাজার ৪০৯,  সুনামগঞ্জে ২ হাজার ৪৪৭, হবিগঞ্জে ১ হাজার ৫৮৫ ও মৌলভীবাজারে ১ হাজার ৭২৯ জন। সিলেটে হাসপাতালে ভর্তি আছেন ৩১ জন। এর মধ্যে সিলেট জেলায় ২৯ ও হবিগঞ্জে ২ জন। মৌলভীবাজার ও সুনামগঞ্জে কেউ ভর্তি নেই। সিলেটের করোনা চিকিৎসার একমাত্র হাসপাতাল হচ্ছে শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতাল। করোনার শুরুতে এ হাসপাতালে চিকিৎসা ব্যবস্থায় নানা সীমাবদ্ধতা থাকলেও এখন সেটি বাড়ানো হয়েছে। সিলেটের প্রাচীন এ হাসপাতালে এরই মধ্যে করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য সেন্ট্রাল অক্সিজেন ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের উদ্যোগে হাইফ্লো ক্যানোলা দিয়ে রোগীদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এ ছাড়া- সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেও করোনা আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

 

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন- সিলেটের শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে এখনো অনেক রোগী করোনা চিকিৎসা নিতে পারবে। রোগী বাড়ছে ধীরে ধীরে। অন্যদিকে- সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরছেন রোগীরা। ফলে হাসপাতালে এখনো ৪০ জনের মতো রোগীর চিকিৎসা সেবা দেয়া সম্ভব হবে। শামসুদ্দিন হাসপাতালে রোগীর ঠাঁই না হলে জরুরিভিত্তিতে ওসমানীতে রোগী ভর্তির সুযোগ রয়েছে। একই সঙ্গে করোনার জন্য সিলেটের শাহপরানে খাদিমপাড়া হাসপাতাল ও দক্ষিণ সুরমায় আরো একটি হাসপাতাল প্রস্তুত রয়েছে। এ দু’টি হাসপাতালেও রোগী ভর্তি করা যাবে।

 

স্বাস্থ্য বিভাগ সিলেটের সহকারী পরিচালক (রোগ নির্ণয়) ডা. আনিসুর রহমান জানিয়েছেন- সিলেটে করোনা আক্রান্ত রোগী এবং মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। তবে- সেটি দ্রুতগতিতে না। মানুষ সচেতন হলে করোনা নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হবে। তিনি জানান- সিলেটের অপর ৩ জেলায় এন্টিজেন টেস্ট চালু হচ্ছে। করোনা মোকাবিলায় সিলেটে সবধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।