সাহেব বাজারে সরকারি রাস্তা দখলে মরিয়া আকরাম উদ্দিন

প্রকাশিত:রবিবার, ২০ ডিসে ২০২০ ১১:১২

সাহেব বাজারে সরকারি রাস্তা দখলে মরিয়া আকরাম উদ্দিন

সিলেট অফিস  :: সরকারি রাস্তা দখলে মরিয়া বাজারতল গ্রামের পল্লী চিকিৎসক আক্রাম উদ্দিন সংবাদ সম্মেলনে মিথ্যাচার করেছেন বলে অভিযোগ তুলেছেন সিলেট সদর উপজেলার খাদিমনগর ইউনিয়নের দেবাইরবহর গ্রামের আব্দুল খালিকের ছেলে এম নুরুল ইসলাম।

শনিবার দুপুরে বৃহত্তর সাহেববাজার এলাকাবাসীর উদ্যোগে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, সদর উপজেলার ফড়িংউরা মৌজার জেএল নম্বর ৫০ এর ২৭৯৫ দাগে সিলেটের জেলা প্রশাসকের ১ নম্বর ডিপি খতিয়ানে ২০০৪ সালে ৮ শতক ভূমি রাস্তারকম রেকর্ড হয়। চূড়ান্ত ম্যাপেও সেটি রাস্তা হিসাবে আঁকা হয়েছে। কিন্তু বর্তমান প্রিন্ট পর্চা হাতে আসার পর দেখা যায়, এই ৮ শতকের ৪ শতক ভূমিখেকো আক্রাম উদ্দিন জালিয়াতি ও রেকর্ড বলিউম টেম্পারিং করে নিজের ও তার স্ত্রীর নামে ১৭ নম্বর খতিয়ানে নিয়ে গেছেন। সেটিকে ভিটায় পরিবর্তন করেছেন। এ ব্যাপারে এলাকার আব্দুস সালাম বাদি হয়ে বিভিন্ন দফতরে স্থানীয়দের পক্ষে অভিযোগ দিয়েছেন। গত ১২ ডিসেম্বর সদর উপজেলা ভূমি কমিশনার সার্ভে করে অভিযোগের সত্যতাও পেয়েছেন। তিনি ঘর নির্মাণ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন। ১৪ ডিসেম্বর সরকারি সার্ভেয়ার আবারও রাস্তার সীমানা নির্ধারণ করেন। এদিন বিকেলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহুয়া মমতাজ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং ঘরটি ভাঙার আশ্বাস দেন। এদিকে ভূমি জালিয়াতির অভিযোগের প্রেক্ষিতে সিলেটের জোনাল সেটেলমেন্ট অফিস এ ব্যাপারে আগামী ২৪ ডিসেম্বর শুনানির দিন ধার্য্য করেছেন।

তিনি বলেন, আক্রাম উদ্দিন একজন পরধনলোভী চতুর ভূমিখেকো হিসাবে এলাকায় পরিচিত। তিনি আরও অনেক ভূমি জালিয়াতির মাধ্যমে আত্মসাতের চেষ্টা করছেন। তিনি সস্ত্রীক নারী নির্যাতন মামলায় কারাভোগ করেছেন। তার মালিকানাধীন ফয়সল মেডিকেল হলে মেয়াদ উত্তীর্ণ ও নিন্মমানের ওষুধ রাখা, বিক্রি এবং প্রেসক্রিপশন দেয়ার অপরাধে বেশ কয়েকবার মোবাইল কোর্ট তাকে মোটা অংকের জরিমানা করেছে। তাছাড়া এই জমি দখলের প্রতিবাদ করার কারণেই তিনি এলাকার মতিউর রহমানের নামে মিথ্যা তথ্য সাজিয়ে বক্তব্য রেখেছেন।
নুরুল ইসলাম, আক্রাম উদ্দিনের অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হতে এবং এলাকাবাসীর অর্ধশত বছরের চলাচলের একমাত্র রাস্তার জমি দখল থেকে তাকে বিরত রাখতে প্রশাসন, গণমাধ্যম কর্মীসহ এলাকাবাসীর সচেতন ভূমিকার প্রত্যাশা ব্যাক্ত করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- বৃহত্তর সাহেববাজার এলাকার মো. আনছার আলী মেম্বার, সাহেববাজার সুন্নিয়া হাফিজিয়া দাখিল মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি মাওলানা শামছুর রহমান, সাহেববাজার ব্যবসায়ী সমিতির সেক্রেটারি শফিকুর রহমান, সাহেববাজার দাখিল মাদ্রাসার সুপারিন্টেড মাওলানা আব্দুর রউফ, আব্দুল আলীম, মুজিবুর রহমান, দেলোয়ার হোসাইন, আব্দুস সালাম, মো. রইছ আলী, কুতুব উদ্দিন, তৈয়বুর রহমান, বাবুল মিয়া, মোহাম্মদ আলী, আব্দুল মনাফ, মনির উদ্দিন, আরব আলী, আব্দুল করিম, সবুজ খাঁনসহ এলাকার সর্বস্থরের জনসাধারণ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ