পাথর কোয়ারি খোলার দাবিতে ২২ ডিসেম্বর থেকে সিলেট বিভাগে তিন দিনের পরিবহন ধর্মঘট

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার, ১৭ ডিসে ২০২০ ১১:১২

পাথর কোয়ারি খোলার দাবিতে ২২ ডিসেম্বর থেকে সিলেট বিভাগে তিন দিনের পরিবহন ধর্মঘট

সিলেট বিভাগে এবার পাথর কোয়ারী সচলের দাবীতে তিন দিনের পরিবহণ ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন গণপরিবহণ ও পণ্যপরিবহণ মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এর আগে পাথর কোয়ারী সচলের দাবীতে ৪৮ ঘণ্টার পণ্যপরিবহন ধর্মঘট কর্মসূচি পালন করেছিল ‘বৃহত্তর সিলেট পাথর সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ’। তবে ওই ধর্মঘটের পরও কোনো সুরাহা হয়নি বলে দাবী করেন ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দ। ফলে পুনরায় ৭২ ঘণ্টার পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিতে বাধ্য হয়েছেন বলে জানান তারা।

বৃহস্পতিবার (১৭ ডিসেম্বর) ঐক্য পরিষদের পক্ষ থেকে সিলেট বিভাগীয় ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান মালিক ঐক্য পরিষদ ও সিলেট জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের সভাপতি গোলাম হাদী ছয়ফুল এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

নগরীর সুবহানীঘাটস্থ হোটেল ভ্যালি গার্ডেনে চলমান পাথর কোয়ারী সচলের দাবিতে চলমান আন্দোলন নিয়ে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভা থেকে গণপরিবহণ ও পণ্যপরিবহণ মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে এ ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছে বলে জানান গোলাম হাদী ছয়ফুল। পুরো সিলেট বিভাগে এ ধর্মঘট কর্মসূচি আগামী ২২, ২৩ ও ২৪ ডিসেম্বর পালন করা হবে বলেও জানান তিনি।

এর আগে একই দাবিতে ডাকা ৪৮ ঘণ্টার পণ্যপরিবহন ধর্মঘট ১০ ডিসেম্বর সকাল ৬টায় শেষ হয়। ওই দিনই ‘বৃহত্তর সিলেট পাথর সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ’ নেতৃবৃন্দ ১৭ ডিসেম্বর (আজ) কঠোর কর্মসূচির ডাক দেয়ার হুঁশিয়ারিও জানিয়েছিলেন।

সিলেট বিভাগীয় ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান মালিক ঐক্য পরিষদ ও সিলেট জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের সভাপতি গোলাম হাদী ছয়ফুলের সভাপতিত্বে ও সিলেট বিভাগীয় ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান মালিক ঐক্য পরিষদ ও সিলেট জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের সাংগঠনিক সম্পাদক শাব্বীর আহমদ ফয়েজের পরিচালনায় সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিলেট বিভাগীয় ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ঐক্য পরিষদ ও সিলেট জেলা ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু সরকার।

মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক সাদেক খান, সাংগঠনিক সম্পাদক ও হবিগঞ্জ জেলা সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সজিব আলী, সিলেট বিভাগীয় ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান মালিক ঐক্য পরিষদ ও হবিগঞ্জ জেলা ট্রাক-ট্যাংকলরি মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক, মৌলভীবাজার জেলা ট্যাংকলরি শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আজাদুর রহমান ওয়াদুদ, হবিগঞ্জ জেলা মটর মালিক গ্রুপের সহ-সভাপতি মো. হেলাল উদ্দিন, যুগ্ম সম্পাদক আবু মঈন চৌধুরী সোহেল, হবিগঞ্জ জেলা বাস-মিনিবাস ও মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি মো. জিতু মিয়া, সুনামগঞ্জ জেলা বাস মালিক গ্রুপের যুগ্ম সম্পাদক মোঃ মুর্শেদ আলম, সুনামগঞ্জ জেলা সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যকরি সভাপতি বুরহান উদ্দিন, সুনামগঞ্জ জেলা ট্রাক-ট্যাংকলরি-কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ও বিভাগীয় শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. নুর উদ্দিন, সিলেট জেলা বাস-মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান নির্বাচন কমিশনার হাজী গোলাম হাফিজ লোহিত, সিলেট জেলা ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যকরি সভাপতি আব্দুস সালাম, সিলেট জেলা বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল কবির পলাশ, সিলেট জেলা অটোটেম্পু-অটোরিক্সা শ্রমিক জোটের সভাপতি মো. খলিল খান, কার্যকরি সভাপতি মো. মতছির আলী, সিলেট জেলা সিএনজি অটোরিক্সা-অটোটেম্পু ও টেক্সিকার মালিক সমিতির সভাপতি শাহ মো. দিলোয়ার, সাধারণ সম্পাদক মো. অনোয়ার হোসেন, সিলেট জেলা ট্যাংকলরি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. মনির হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আজিজ, সিলেট জেলা সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যকরি সভাপতি মো. রুনু মিয়া, সহ-সভাপতি শাহ জামাল, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মইনুল ইসলাম, বৃহত্তর পাথর সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের আহবায়ক আব্দুল জলিল মেম্বার, সদস্য সচিব নুরুল আমিন, সিলেট জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. গোলাম মোস্তফা, সহ-সভাপতি আতিকুর রহমান আতিক, সাধারণ সম্পাদক পুলক কবির চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক জাকির আহমদ তালুকদার, কোষাধ্যক্ষ রিমাদ আহমদ রুবেল, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক রাজ্জিক লিটু, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক সাদেক খান, দপ্তর সম্পাদক আফজাল চৌধুরী, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক সোরাব আলী, নির্বাহী সদস্য আকমাম আব্দুল্লাহ, শাহাদত হোসেন, সিলেট জেলা ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক শামীম আহমদ, ধুপাগুল পাথর ব্যবসায়ী সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি সৈয়দ সালেহ আহমদ শাহনাজ, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পাথর ব্যবসায়ী সমিতির সহ সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী বাবুল, জাফলং পাথর ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আব্দুস শহিদ, বাবুল আহমদ, পাথর ব্যবসায়ী হাবীবুর রহমান হাবীব, বিশিষ্ট পরিবহণ ব্যবসায়ী হাজী গুলজার আহমদ, দক্ষিণ সুরমা-মোগলাবাজার ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি কাউছার আহমদ, সহ-সভাপতি জুমায়েল ইসলাম জুমেল, সাধারণ সম্পাদক কাউছার আহমদ, বিছনাকান্দি পাথর ব্যবসায়ী সমিতির ব্যবসায়ী আব্দুল মতিন প্রমূখ।

সভায় বক্তারা বলেন, সিলেটের পাথর কোয়ারী বন্ধ থাকায় প্রায় ১৫ লক্ষ মালিক-শ্রমিক অসহায় হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। পরিবহণ ব্যবসাসহ সকল প্রকার ব্যবসা বাণিজ্য বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ভেঙে পড়েছে বৃহত্তর সিলেটের অর্থনৈতিক অবকাঠামো। ইতিমধ্যে পাথর কোয়ারী সচল করে দিতে বিভিন্ন দফতরে স্মারকলিপি ও সিলেট জেলায় ৪৮ ঘন্টার ধর্মঘট পালন করা হয়েছে। তাছাড়া পাথর কোয়ারী সচল করে দিতে মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও কোয়ারী সচল করে দেওয়া হচ্ছে না। তাই বাধ্য হয়ে ১৫ লক্ষাধিক মানুষের জীবন রক্ষার্থে আগামী ২২, ২৩ ও ২৪ ডিসেম্বর রোজ মঙ্গল, বুধ ও বৃহস্পতিবার সিলেট বিভাগে সকল প্রকার পরিবহণ ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছে। ধর্মঘট সফল করতে সকল পরিবহণ মালিক-শ্রমিকদের প্রতি অনুরোধও জানান নেতৃবৃন্দ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ