সিসিকের পাঁচ কাউন্সিলরের ভূরিভোজ : হরিপুরের রেস্তোরাঁয় মোবাইল কোর্টের জরিমানা

প্রকাশিত:সোমবার, ১৪ ডিসে ২০২০ ১১:১২

সিসিকের পাঁচ কাউন্সিলরের ভূরিভোজ : হরিপুরের রেস্তোরাঁয় মোবাইল কোর্টের জরিমানা

জৈন্তাপুর প্রতিনিধি।। সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার হরিপুর বাজারে পাখির মাংস দিয়ে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের (সিসিক) ৫ কাউন্সিলরের ভূরিভোজ করা সেই রেস্তোরাঁয় মোবাইল কোর্ট চালিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। রবিবার বিকেলে পরিচালিত অভিযানে দুই রেস্তোরাঁকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

ওই রেস্টুরেন্টে শনিবার রাতে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের পাঁচ কাউন্সিলর পাখির মাংস দিয়ে ভূরিভোজ করেছিলেন। সোস্যাল মিডিয়া তাদের পাখির মাংস ভক্ষণের বিষয়টি সম্প্রচার হবার পর বিষয়টি ব্যাপকভাবে আলোচিত হয়। এরপর রবিবার বিকেলে মোবাইল কোর্ট চালিয়ে রেস্তোরাঁ মালিককে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন।
জৈন্তাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাহিদা পারভীন এই অভিযান ও ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদ পারভিন জানান, নিয়মিত অভিযানের অংশ হিসেবে বরিবার এ দুটি রেস্তোরাঁয় অভিযান চালানো হয়। এর আগে ও দুটি রেস্তোরাঁকে পাখির মাংস বিক্রির দায়ে জরিমানা করা হয়।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ‘তারু মিয়া হোটেল’ নামের ওই রেস্তোরাঁয় অভিযান চালিয়ে পাখি জবাই করে মাংস সংরক্ষণ করে রাখা ও মাংসের তরকারি পাওয়া যায়। এই রেস্তোরাঁর পাশে নামবিহীন আরও একটি রেস্তোরাঁ তল্লাশি করে ১৫টি পাখির মাংস পাওয়া যায়। দুটি রেস্তোরাঁয় পরিচালনায় থাকা দুজন ব্যবসায়ীকে আটক করে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। জরিমানার টাকা দিয়ে দুই রেস্তোরাঁ মালিক ছাড়া পান।
জানা গেছে, তারু মিয়ার রেস্তোরাঁয় গত শুক্রবার রাতে সিলেট সিটি করপোরেশনের পাঁচজন কাউন্সিলর ধলাবুক ডাহুক, বক ও বালিহাঁসের মাংস দিয়ে ভূরিভোজ করেন। তারা হলেন-সিলেট সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র ও ২৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ তৌফিক বকস, ১১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রকিবুল ইসলাম, ৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইলিয়াছুর রহমান, ১৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবদুল মুহিত জাবেদ এবং ১০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর তারেক উদ্দিন তাজ। তাঁদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী রায়হান আহমদ ছিলেন।
বাংলাদেশের বন্য প্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন ২০১২ অনুযায়ী, কোনো পাখি বা পরিযায়ী পাখি বা মাংস ক্রয়-বিক্রয় অপরাধ এবং এতে ৬ মাসের কারাদন্ড অথবা ৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত অর্থদন্ডের বিধান রয়েছে। এ আইনের তফসিল অনুযায়ী দেশের স্থানীয় বন্য পাখি ধলাবুক ডাহুক, বক ও বালিহাঁস নিষিদ্ধ পাখির অন্তর্ভূক্ত।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জৈন্তাপুর উপজেলার হরিপুর বাজার সিলেট-তামাবিল হাইওয়েতে অবস্থিত। এখানের তারু মিয়া হোটেল, পুরোনো ড্রাইভার হোটেল, বিসমিল্লাহ হোটেলসহ বেশ কয়েকটি রেস্তোরাঁয় অবাধে বিক্রি হয় বন্য ও অতিথি পাখি।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ