বিশ্বনাথে গাঁজা দিয়ে অন্যকে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেলেন নিজেই

প্রকাশিত:মঙ্গলবার, ০১ ডিসে ২০২০ ০৮:১২

বিশ্বনাথে গাঁজা দিয়ে অন্যকে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেলেন নিজেই
বিশ্বনাথ প্রতিনিধি :: গাঁজা দিয়ে অন্যকে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেলেন বিশ্বনাথের এক যুবক। ফেঁসে যাওয়া যুবকের নাম রুবেল আহমদ (২৭) তিনি উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের কাউপুর গ্রামের আনাই আলীর পুত্র।
বিশ্বনাথ পুরানবাজারস্থ জবান উল্লাহ শপিং কমপ্লেক্সে। এ ঘটনায় থানার এসআই অলক দাশ বাদি হয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে বিশ্বনাথ থানায় ৫ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। যার ২১। মামলার অন্যান্য আসামীরা হলেন রামপাশা ইউনিয়নের চক রামপ্রাসাদ গ্রামের কদরিছ আলী পুত্র কুতুব উদ্দিন (২৫), কাউপুর গ্রামের ওয়ারিছ আলীর স্ত্রী রেসনা বেগম (৪০), একই গ্রামের ছয়ার আলীর স্ত্রী সুনেরা বেগম (৩৫) ও হাজী আরশ আলীর পুত্র নজরুল ইসলাম নিজাম (৩৯)।
মামলার এজাহারে জানাগেছে, বিশ্বনাথ পুরানবাজারের জবান উল্লাহ শপিং কমপ্লেক্সের লাকি টেইলার্সের পরিচালক জুবায়ের আহমদ রাজু ও জুনাইদ আহমদ কামরানকে গাঁজা দিয়ে ফাঁসাতে চেয়েছিল এজাহার নামীয় আসামি কুতুব, রুবেল, রেছনা, নজরুল ইসলাম নিজাম ও সুনেরা বেগম। পুলিশ জানায়, বিষয়টি আদালতের ১৬৪ ধারা জবান বন্ধিতে স্বীকার করেছেন এজাহার নামীয় ১ নং আসামী রুবেল আহমদ। রুবেল জবানবন্ধিতে ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে লাকী টেইলার্সে গাঁজা রাখার কথা ও স্বীকার করে এবং লাকী টেইলার্সের পরিচালক জুবায়ের আহমদ রাজু ও জুনাইদ আহমদ কামরানকে ফাঁসানোর কথাও স্বীকার করে রুবেল আহমদ।
জানাগেছে, পূর্ব শক্রতার জের ধরে গাঁজা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্ঠা করে আসামীরা।
বিশ্বনাথ থানার এসআই অলক দাশ বলেন, অন্যকে গাঁজা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্ঠা করেছিল আসামীরা। তদন্তে এর সত্যতা পেয়ে আসামীদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে এবং এজাহার নামীয় আসামী রুবেলকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ