এবার খেলোয়াড়দের পেটালেন দিরাই’র ইউএনও শফি উল্লাহ

প্রকাশিত:শনিবার, ২৮ নভে ২০২০ ১১:১১

এবার খেলোয়াড়দের পেটালেন দিরাই’র ইউএনও শফি উল্লাহ

সুরমাভিউ:-  শফি উল্লাহ তিনি দিরাইয়ে কর্মরত উপজেলা নির্বাহী অফিসার। সংবাদের প্রয়োজনীয় তথ্য নেয়া শেষে কল কেটে দেয়ার সময় তাকে ‘স্যার’ না ডেকে ‘ভাই’ বলে সম্বোধন করায় তিনি স্থানীয় এক সাংবাদিকের উপর বেজায় খেপেছিলেন। এনিয়ে দেশজুড়ে আলোচনা সমালোচনা হয়েছিল।
এবার প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়দের পেটানো এবং বিশিষ্টজনদের বাদ দিয়ে নিজের শিশুপুত্রকে দিয়ে ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করে তিনি নতুন বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন।
শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৪ টায় দিরাইয়ে রাফসান একাডেমি ফুটবল টুর্নামেন্ট খেলায় এ ঘটনাটি ঘটে। দিরাই’র ইউএন ও নিজের শিশু ছেলের নামে একাডেমী করে ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজন করে নিজেই খেলোয়াড়দের মারধরের ঘটনায় দুই পক্ষের মধ্যে টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে।

জানা যায়, শুক্রবার বিকেলে দিরাই বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে উপজেলা প্রশাসন দল বনাম উপজেলা বিদ্যুৎ প্রকৌশলী দলের প্রথম রাউন্ডের খেলায় এই সংঘর্ষটি হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, খেলা শুরু হওয়ার আগেই উপজেলা প্রশাসন দলে বহিরাগত খেলোয়াড় নিয়ে খেলতে চাইলে প্রতিপক্ষ দলের খেলোয়াড়দের আপত্তি উঠে। এনিয়ে দুই দলের আপত্তি অনাপত্তির মাঝেই খেলা শুরু করেন রেফারি দিরাই সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাফর ইকবাল।

খেলার দ্বিতীয়ার্ধে একটি ফাউল ধরাকে কেন্দ্র করে দুদলের খেলোয়াড়দের মধ্যে কথা কাটাকাটির সৃষ্টি হয়। বাকবিতন্ডার একপর্যায়ে প্রতিপক্ষ দলের খেলোয়াড়দের দিকে মারমুখী হয়ে ওঠেন দিরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শফি উল্লাহ। এক পর্যায়ে প্রতিপক্ষ খেলোয়াড় কমলেশ দাসকে ধাক্কা দিয়ে মাঠে ফেলে দেন তিনি।

এসময় দু দলের মধ্যে চলমান খেলাটি ফেইসবুক লাইভে পরিচালনা করছিল বিদ্যুৎ অফিসের কর্মচারি নুরুজ্জামান মুকুল।

খেলোয়াড়কে মারধরের ঘটনাটি লাইভে প্রচার হচ্ছে বিষয়টি ইউএনও দেখে ফেলেন, পরে দৌড়ে গিয়ে নুরুজ্জামানকে গলায় ধরে মারতে মারতে তার মোবাইলটি কেড়ে নিতে চেষ্টা করেন।

তবে লাইভে থাকা মোবাইলটা কেঁড়ে নিতে না পারায় পুরো ঘটনাটি ফেইসবুকের লাইভে চলে যায়। এমন উত্তেজনাকর ঘটনার পর খেলা ভেঙ্গে যায় এবং মাঠে দর্শকেরা প্রবেশ করে। ইউএনওর ধারা এমন উদ্ভট আচরণে উপস্থিত দর্শকেরা উত্তেজিত হয়ে উঠলে মাঠে থাকা বিভিন্ন অফিসের কর্মচারীরা শফি উল্লাহ কে নিরাপত্তা বেষ্টনীতে দিয়ে রাখেন। পরে তাদের বেষ্টনীর মাধ্যমে তাৎক্ষণিকভাবে মাঠ ত্যাগ করেন ইউএনও শফি উল্লাহ।

এব্যাপারে বক্তব্য নিতে দিরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শফি উল্লার ব্যবহৃত মোবাইলের 01730331113 নাম্বারে করেকবার কল দিলেও ফোন রিসিভ করেন নি এই কর্মকর্তা।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে, দিরাই উপজেলার ( বিদ্যুৎ)আবাসিক প্রকৌশলী হায়দার আলী মজুমদার বলেন, খেলায় অনাকাঙ্ক্ষিত একটা ঘটনা ঘটেছে, পরে আমরা বিষয়টি মিমাংসা করে ফেলছি। মারধরের শিকার খেলোয়ার কমলেশ দাস বলেন, বহিরাগত খেলোয়াড় নিয়ে প্রতিপক্ষ দলেরা খেলতে চাইলে আমরা বাধা দেই, পরে খেলা শুরুর প্রথম থেকেই তারা মারমুখী হয়ে ওঠেন।

খেলার এক পর্যায়ে ইউএনও স্যার আামাদেরকে অন্যায়ভাবে মারধর করতে থাকেন। এব্যাপারে জানতে চাইলে খেলার রেফারির দায়িত্ব পালন করা জাফর ইকবালের মোবাইলে বার বার কল দিলেও রিসিভ হয়নি।

উল্লেখ্য, ৯ টি দলের অংশগ্রহণে দিরাই উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে ২০ শে নভেম্বর দিরাই সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে টুর্নামেন্টের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন, রাফসান একাডেমির প্রেসিডেন্ট ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের শিশুপুত্র শাহার উল্লাহ রাফসান।যেখানে উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দসহ প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের রেখে ৬ বছরের ছেলেকে দিয়ে খেলা উদ্বোধন করান তিনি। পরে অতিথিদের অসম্মান করার বিষয়টি জানাজানি হলে এনিয়ে এলাকার নিন্দার ঝড় উঠে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ