দুই পরগনার যৌথ ডাকে রণক্ষেত্র কানাইঘাট

প্রকাশিত:সোমবার, ০৯ নভে ২০২০ ১০:১১

দুই পরগনার যৌথ ডাকে রণক্ষেত্র কানাইঘাট

কানাইঘাট প্রতিনিধি:-  সিলেটের কানাইঘাটে দুই পরগণার যৌথ ডাকে কানাইঘাট-দরবস্থ সড়কের ভুরিরতল নামক স্থান রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। আজ সোমবার সকাল ৮ টা হতে চতুল ও ফালজুর পরগনার কয়েক হাজার মানুষ লাটিসোঠা সহ বিভিন্ন অস্ত্র নিয়ে প্রথমে চতুল ইউপি’র হখাইরাই গ্রামে কানাইঘাট-দরবস্থ সড়কে অবস্থান নেয়।

 

এ সময় পুলিশ রাস্তার মধ্য অবস্থান নিয়ে তাদের ব্যারিকেট দিয়ে আটকে রাখে। এবং তাদের সকল দাবী দাওয়া শুনে শান্ত করার চেষ্টা করে। এ ছাড়াও প্রাচীন জৈন্তিয়া রাজ্যের ১৭ পরগণার মুরব্বীগণ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাদের শান্ত থাকার আহবান করেন। এক পর্যায়ে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে দেশীয় অস্ত্রশ¯্র নিয়ে চতুল ও ফালজুর পরগণার লোকজন পুলিশের ব্যারিকেট ভেঙ্গে কানাইঘাট বাজারের দিকে রওয়ানা হয়। এতে পুলিশ পিছুহটে প্রায় আরো আধা কিলোমিটার পিছনে ভুরিরতল নামক স্থানে গিয়ে পূর্ণরায় ব্যারিকেট সৃষ্ঠি করে।

 

এক পর্যায়ে অস্ত্রধারী সস্বশ্র লোকজন আবারো পুলিশের ব্যারিকেট ভেঙ্গে কানাইঘাটের দিকে এগুতে চাইলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এসময় পুলিশকে লক্ষ করে চতুল ও ফালজুর পরগনার লোকজন ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশের সাথে সংঘর্ষ বেধে যায়। এ সময় পুলিশ বেশ কয়েক রাউন্ড টিয়ারগ্যাস ও রাবার বুলেট ছুড়ে তাদের সত্রভঙ্গ করে দেয়। পুলিশের রাবার বুলেট ও টিয়ারগ্যাসের ভয়ে চতুল ও ফালজুর পরগনার কিছু লোকজন তারাহুড়ো করে পালাতে গিয়ে আহত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। এদিকে প্রতিপক্ষের লোকজনের ইটপাটকেলের আঘাতে ২ পুলিশ সদস্য গুরুত্বর আহত হয়েছে।

 

উল্লেখ্য গত কয়েকদিন পূর্বে কানাইঘাট বাজারের ব্যবসায়ী আকবরের সাথে লখাইরগ্রামের এক ক্রেতার মারামারিকে কেন্দ্র করে এ ঘটনার সূত্রপাত হয়েছে। তবে আকবর হোসেনের বাড়ি পৌরসভার দুর্লভপুর গ্রামে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ