গোলপগঞ্জ উপজেলা ও পৌর বিএনপির উদ্যোগে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস পালন

প্রকাশিত:রবিবার, ০৮ নভে ২০২০ ০২:১১

গোলপগঞ্জ উপজেলা ও পৌর বিএনপির উদ্যোগে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস পালন

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি:-  গোলাপগঞ্জে ৭ নভেম্বর, দিনটিকে ঐতিহাসিক জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস পালন করেছে গোলাপগঞ্জ উপজেলা ও পৌর বিএনপি। গত শনিবার (৭ নভেম্বর) বাদ আসর গোলাপগঞ্জে একটি হলরুমে উপজেলা বিএনপির আহবায়ক আব্দুল গফুরের সভাপতিত্বে ও পৌর বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য আলেকুজ্জামান আলেকের সঞ্চলনায় ঐতিহাসিক জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস পালন করা হয়।

 

জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে বক্তব্য রাখেন, সাবেক উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যান নুমান উদ্দিন মুরাদ, উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির অন্যতম সদস্য ও মেয়র পদপ্রার্থী গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী শাহীন, উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য হাজী আব্দুল জলিল সেলিম, আমুড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রুহেল আহমদ, ফুলবাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান ফয়ছল, উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য সাবেক চেয়ারম্যান মামুন আহমদ রিপন, মামুনুর রশিদ মামুন, শাহ জামাল আহমদ, পৌর বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য ছালিক আহমদ চৌধুরী, সুফিয়ান আহমদ খান, মিনহাজ উদ্দিন চৌধুরী, দুলাল আহমদসহ ছাত্রদল, যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতৃবৃন্দ।

 

বক্তারা বলেন বলেন, দেশমাতৃকার চরম সংকটকালে ১৯৭৫ এর ৩ নভেম্বর কুচক্রিরা জিয়াউর রহমানকে সপরিবারে ক্যান্টনমেন্টে বন্দি করে। এ অরাজক পরিস্থিতিতে ৭ নভেম্বর দেশপ্রেমিক সৈনিক এবং জনতার ঢলে রাজপথে এক অনন্য সংহতির স্ফুরণ ঘটে এবং জিয়াউর রহমান মুক্ত হন। এ দিনে ক্যান্টনমেন্টের বন্দিদশা থেকে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানকে মুক্ত করে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব দেন সিপাহী-জনতা।

 

তার আরোও বলেন, ১৯৭৫ সালের এ দিনে স্বাধীনতার চেতনায় আধিপত্যবাদী শক্তির নীল নকশা প্রতিহত করেন এদেশের বীর সৈনিক ও জনতা। সম্মিলিত প্রয়াসে জনগণ নতুন প্রত্যয়ে জেগে ওঠে। ৭ নভেম্বর বিপ্লবের সফলতার সিঁড়ি বেয়েই আমরা বহুদলীয় গণতন্ত্র এবং অর্থনৈতিক মুক্তির পথ পেয়েছি।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ